Monday, May 4, 2020

রুদ্র কিংশুক || বিশ্বদুনিয়ার নতুন কবিতা || রোজা জামালি-র কবিতা

বিশ্বদুনিয়ার নতুন কবিতা
রুদ্র কিংশুক

রোজা জামালি-র কবিতা

 সাম্প্রতিক ইরানি কবিতায় উল্লেখযোগ্য মুখ রোজা জামালি( Rosa Jamai, 1977) । ফারসি কবিতায় তিনি এনেছেন নতুন ভাষা ও নতুন চিহ্ন প্রকরণ । শিকড়-ছিন্ন , আতুর বেগানা নয় তাঁর কবিসত্তা । ঐতিহ্য- লগ্নতা ও নিরীক্ষা প্রবণতা ---- এই দুয়ের যথাযথ সম্মেলন বা সংশ্লেষ ঘটেছে তাঁর কবিতায়। কেবলমাত্র নারীবাদী দৃষ্টিকোণ থেকে তিনি থেকে তিনি বিশ্ব ও তার সমস্যাকে দেখেননি। একজন সংবেদনশীল। একজন সংবেদনশীল মানুষের মন নিয়ে তিনি দেখেছেন জীবন ও তার তিনি দেখেছেন জীবন ও তার পরিপার্শকে। এই জন্য রোজ-র কবিতায় কোন সংকীর্ণ , এক কেন্দ্রিক দৃষ্টিভঙ্গির প্রাধান্য নেই ।তাঁর কবিতা বহুরৈখিক বা বহুমাত্রিক।

চকমকি
১.
তারা দরদাম করে একখণ্ড পাথর নিয়ে
যার কাছে খুব ঋণী
পরিষ্কার নয়
এটা আগুনের পাথর
নাকি চকমকি ?

২.
আমার সুখের জন্য আমার ঋণ
 এই পাথরটির কাছে
তোমরা গেছ সেই পাহাড়ের সেই পাহাড়ের কাছে
 যার ঋণ এই পাথরের এই পাথরের কাছে।

 ৩.
এই পাথরের কাছে আমার ঋণ

৪.
দাবি করছে
যেন জাদুবলে
কারাগার থেকে

 ৫.
এই পাথরের আমি মা
আমি লালন করেছি একে করেছি একে
আমি অশ্রু ফেলেছি তার উপর
যদি পৃথিবীতে আগুন লাগে
সেটা আমারই দোষ ।
৬.
আমি বাতাসের বিশ্বাস ভেঙেছি
 ঈশ্বর তার দ্বারা অসমর্থ
 ঈশ্বর তার দ্বারা অসমর্থ ।

৭.
তুমি কি নীরবতার প্রতিজ্ঞা করেছো প্রতিজ্ঞা করেছো?


কাঁচা মরিচ

আমি কাঁচা মরিচ
স্বাদ বৃদ্ধির জন্যই আমার জন্ম
প্রয়োজনের জন্ম

আমার কোলের উপর তেহরান

আমার কোলের উপর তেহরান
মৃত্যুযন্ত্রণায়
আমার বুকের ওপর একটা বুড়ো ষাঁড়
চীৎকার করছে
পোষমানা আর একঘেঁয়ে
 শরীর ঘষছে আমার চুলে
আগামীকাল এটা হবে একটা মৃতদেহ
মুদ্দাফরাস একে তুলে নেবে
আমি তো সেই লাথির আশ্রয়
আমি তাকে ছেড়ে যাব

1 comment:

আটপৌরে কবিতা ৪৪৬- ৪৫০ || নীলাঞ্জন কুমার || ধারাবাহিক বিভাগ

আটপৌরে কবিতা নীলাঞ্জন কুমার ৪৪৬ কুসুমাস্তীর্ণ /কণ্টকাকীর্ণ/  স্বাভাবিক          ) পথ ( চলতে চলতে লক্ষ্যে এগোন । ৪৪৭ মোব...