রবিবার, ৫ জুলাই, ২০২০

বিশ্বদুনিয়ার নতুন কবিতা || রুদ্র কিংশুক || মোনিকা হারসেগ-এর কবিতা

বিশ্বদুনিয়ার নতুন কবিতা 
রুদ্র কিংশুক 
মোনিকা হারসেগ-এর কবিতা


মোনিকা হারসেগ (Monika Herceg, 1990) ক্রোয়েশিয়ার বিশিষ্ট তরুণ কবি। তাঁর জন্ম ক্রোয়েশিয়ার  সিসাগ শহরে।  ইউনিভার্সিটি অব  রিজেকা থেকে তিনি পদার্থবিদ্যা অধ্যয়ন করেছেন। তাঁর প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ:
Initial Coordinates 2018
Navrh Jezika 2019
বহু বিশিষ্ট পুরস্কারে পুরস্কৃত তাঁর কবিতাগ্রন্থগুলি। অনেক সময় গ্রন্থ প্রকাশের আগেই তাঁর পান্ডুলিপি পুরস্কৃত পুরস্কৃত হয়েছে। বর্তমানে তিনি ক্রোয়েশিয়ার জাগ্রেব শহরে থাকেন।

১.
বেড়ালের মৃত্যু

কয়েক সপ্তাহ ধরে উড়ন্ত প্লেন দেখে
 আমার ভাই বার করলো বেড়ালেরাও উড়তে পারে
সে তাদের ছুড়ে দিতো যতটা উঁচুতে সম্ভব
 আর মায়ের কাছে দৌড়ে গিয়ে চেঁচাতো
দ‍্যাখো, দ‍্যাখো, বেড়াল উড়ছে
বেড়ালরা সবসময় পায়ের ওপর  পড়তো
কেবল একবার বুড়ো মিকি পড়ল তলপেটে
 একটা গোঁজের ধারে

কয়েকদিন পরে
আমরা চৌকাঠে পৌঁছানোর আগে দেখি
 তার ধুসর-লোমনিস্তেজ শরীর
সমমর্যাদায় পড়ে আছে চৌকাঠে
তারই আনা মৃত ইঁদুরের মতো

২.
উর্বরতা

নিড়ানির যথাযথ আঘাত
 শস্যক্ষেত থেকে বার করে দেয় শীত
দিনগুলো পেকে ওঠে চেরিফলে
নারীরা বদলে যায় শক্ত ন‍্যাড়ায়

 মায়ের যত্ন বেড়ালের লম্বা কর্কশ জিভ
 লম্বা ভাব খোলে আর পরিষ্কার করে পোকামাকড়ের ময়লা
চেটে দেয় হারানো পশুর লোম থেকে
 লেগে থাকা উঠানে ঢোকা খারাপ অভ্যাস
তার হাত থেকে উৎসারিত বাঁধাকপি মুলোর চারা
মা তাদের পুনঃ রোপণ রোপণ করে বাড়ির গলায়
তার হাঁটু থেকে জন্ম নেয় সবুজতম সবজি
লোমের বদলে মায়ের শরীর ঝরনা ঢাকা

দুপুরের আগে মা শুয়ে পড়ে সর্বদাই
আকাশের নীলতয় হাড়ের সঙ্গে
সকালের আলো ভর্তি উদর নিয়ে
সকালকে ঢুকিয়ে নেয় তার জরায়ুর ভেতর
 আর জোড়া দেয়
উর্বরতার লম্বা গ্রীবা
ক্লান্তিকর গাছের ভেতর

বৃথা
আমাদের বাড়িতে
যেখানেই হোক না কেন
যারা মারা গেছে তারাও থাকে

বসন্ত কখনো ভেতরে ঢোকে না

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

শব্দব্রাউজ ১৪৯ || নীলাঞ্জন কুমার

   শব্দব্রাউজ ১৪৯ || নীলাঞ্জন কুমার    শব্দব্রাউজ ১৪৯ । নীলাঞ্জন কুমার বিপাশা আবাসন তেঘরিয়া মেন রোড কলকাতা ১২।৪। ২০২১। সকাল সাড়ে আটটায় । দিন...