Sunday, August 16, 2020

কিছু বই কিছু কথা || নীলাঞ্জন কুমার || হাত ছোঁয়ালে লজ্জাবতী

কিছু বই কিছু কথা । নীলাঞ্জন কুমার

হাত ছোঁয়ালে লজ্জাবতী । সুকুমার গরাণী । বাণী প্রকাশ । পন্ঞ্চাশ টাকা ।

সত্যিই  হয়তো একদিন বিজ্ঞাপন দিতে হতে পারে, 'একজন প্রকৃত যৌক্তিক দিক দিয়ে  সমৃদ্ধ কবি চাই ।
কারণ তাহা আজ কম পড়িতেছে । '  ব্যর্থ কবিতার জোয়ার ,টালমাটাল শব্দচয়ন ও যৌক্তিকতার ভেতর দিয়ে লিখে যাওয়া কবিকুলের কবিতা পড়তে পড়তে এই বিজ্ঞাপন দেওয়ার ইচ্ছে ক্রমশ জোরালো হয়ে উঠছে । কবি সুকুমার গরাণীর বইটির মেজাজের সঙ্গে অমানানসই শিরোনামের কাব্যগ্রন্থ ' হাত ছোঁয়ালে লজ্জাবতী ' তে কিন্তু শ্লেষ,  কিছু ব্যক্তি উপলব্ধি ও তাৎক্ষনিক সামাজিক ভাবনার বশবর্তী হয়ে লেখায় বহু সময় যৌক্তিক দিকটির টালমাটাল ঘটেছে । অনেক সময়  পাঠককে যুক্তি সাজাতে হচ্ছে । কিছুতে তাঁর কবিতাকে বাহ্ বলা যাচ্ছে না । তাঁর বাহাত্তরটি নাতিদীর্ঘ কবিতার ভেতরে কিছু কবিতা অনুরণিত করে । যেমন,  ' আমার ছাই চাপা ভবিষ্যত অন্ধকারে রাত জাগে/  এক টুকরো আগুনের আশ্বাসে । ' (বেকার), ' সভ্যতার আদি থেকে এভাবেই/ব্যাটন বদলায় এক থেকে অন্যে ' ( ব্যাটন বদল )।
        কাব্যগ্রন্থটিকে পুণঃপাঠের পর বোঝা যায়,  ' কখনো কখনো/  বুকের মাঝে একতারা বাজে/ উদাস বাউল হেঁটে যায়/  আঁকাবাঁকা মেঠো পথে/  দূরে বহুদূরে/  বাউল মন গান হয়/ একতারা বাজে- / মন খারাপের/  দুঃখের/ কষ্টের ।' ( ' একতারা ')-র মতো কিছু না পাওয়া  কবিতার সামনে দাঁড়িয়ে বলতে ইচ্ছে হয়  , কবিকে জানতে হবে সেই কাব্যিক উপলব্ধি যা তাঁর কবিতা কে স্বতন্ত্র করবে , বুঝতে হবে কবিতা শুধু ব্যক্তিগত বিষয় নয়,  আরো কিছু । খুঁজতে হবে শব্দ ও  যৌক্তিক দিক  যা কবিতাকে সমৃদ্ধ করবে । বর্তমানে বেশ কিছু পত্র পত্রিকায় এই কবির কবিতা পড়ছি  তাতে তাঁর কবিতা কিছু কিছু ক্ষেত্রে উত্তরণের দিকে যাচ্ছে বলা যায় । তাঁর চেষ্টা সফল হোক এই কামনা । দেবব্রত দাসের প্রচ্ছদ পাকা কাজ । তবে শিরোনামের হরফ বিশাল নাহলে আরো নয়নাভিরাম হত।

No comments:

Post a Comment

কিছু বই কিছু কথা । নীলাঞ্জন কুমার এইটুকু । তাপস সরদার

  কিছু বই কিছু কথা । নীলাঞ্জন কুমার  এইটুকু । তাপস সরদার । মৌহারি । পন্ঞ্চাশ টাকা । কখনো কখনো কোনো কোনো কবি তেমন উল্লেখযোগ্য কবিতা না লিখতে...