Saturday, September 5, 2020

কিছু বই কিছু কথা || নীলাঞ্জন কুমার || জল্হাদ তোমার প্রভুকে বোলো

কিছু বই কিছু কথা । নীলাঞ্জন কুমার 

জল্হাদ তোমার প্রভুকে বোলো । সোমক দাস ।পাঠক ।ষাট টাকা ।

আমি ঈশ্বরের মতো কারো কাঁধ খামচে ধরে বলে ফেলি/ - মাঝে মাঝে আমিও জিতে যাই ' ( ' বিস্তার ') , অতল ঘুমের মধ্যে হাত নাড়ে শিশু/  নির্বোধ ও নিশ্চিন্ত/   করুণ ও সুন্দর ' ( ' দিনরাত ') এই দুটি উচ্চারণের ভেতর দিয়ে  নির্বিবাদে কবজির মোচড় ও আলাদা স্বাদ চিন্হিত করেন কবি সোমক দাস তাঁর কাব্যগ্রন্থ ' জল্হাদ তোমার প্রভুকে বোলো ' তে। কবি সোমকের ভেতরে যে কবিতা বাসা বেঁধে থাকে,  তাকে জাগানোর দায় কবির । কবি তা সন্তর্পণে সেরে প্রকৃত শব্দের মাধ্যমে তার সুরভি দেন পাঠককুলে । তারা সমৃদ্ধ হয় ।
                 সোমকের কবিতার  ভেতরে যুক্তি , কাব্য,  সাদামাঠা প্রক্রিয়ার মাধ্যমে যে ব্যন্জ্ঞনা সৃষ্টি হয় তার থেকে পেয়ে যাই  এ ধরনের পংক্তি:  ' তৃষ্ণার্ত চোখে তুমি  চেয়ে দেখো হাস্যকর মৃত্যুর দিকে আজও । ' ( '   পরিব্রাজক '  ), ' তুমি শিল্পিত আঁধারের মতো কেঁপে ওঠো,  সে কি ভয়ে,  না নির্জন শীৎকারে ' (  'অন্তর্লীন ') সহ বহু উচ্চারণে ।
             সোমকের নির্ভেজাল প্রতিবাদ তন্নিষ্ঠ করে । তাঁকে বুঝি, তাই তাঁর কবিতায়  প্রতিবাদ রূপ আলাদা করে পেয়ে যেতে আকাঙ্ক্ষা বাড়ে:  ' শেষ পর্যন্ত, একা একা হোটেল হিন্দুস্থানে / পাঁচ পেগ টিচার্স সেরে বাড়ি ফিরে/  ডাল আলুভাতে দিয়ে/  ভাত খেলাম! / সেটাই শান্তি । ' ( ' ভাত ' )। সোমক দাস তাঁর স্বভাবগত ভাবে কবিতাকে আকর্ষক করে তুলেছেন । দেবাশিস সাহা র প্রচ্ছদ যত দেখছি ততই অবাক হচ্ছি । সামান্য কিছু বাদ দিয়ে বহু ভালোমন্দের কবিতা বইয়ের প্রচ্ছদ  যে দক্ষতায়  তিনি গড়ে তুলেছেন তাতে বাহবা দিতেই হবে। আলোচ্য বইটি তার বিশেষ উদাহরণ ।

No comments:

Post a Comment

বিশ্বজিৎ || ঘোড়া || কবিতা

  বিশ্বজিৎ ঘোড়া তুমি বরাবর শিক্ষা নিতে ভালবাসো।শিক্ষার ভেতরেও একটা শিক্ষা থাকে।অচেনা গলির ঘ্রাণ... রক্ত আছে মাংস আছে তুমিও বোঝ নদী কীভাবে বা...