বৃহস্পতিবার, ৮ অক্টোবর, ২০২০

পূরবী-৪১ || অভিজিৎ চৌধুরী || ধারাবাহিক বিভাগ

পূরবী-৪১

অভিজিৎ চৌধুরী



বাবামশাই,কতো খ্যাতি আপনি পেয়েছেন,তাও সেদিনের কথাগুলি না বললে নয়।

বউমা,এক সময় লোকজন বলতো আমার গানে সুর নেই।

মৃদু হাসলেন।তারপর বললেন,এখন লোকজন বলে গীতিকার রবিবাবু মন্দ নয়।তবে গায়ক রবীন্দ্রনাথ পাতে দেবার নয়।

প্রতিমা বললেন,গান গাইতেও বলেন ওঁরা।

বললুম,সাধ্যের মধ্য হলে বিমুখ করব না।

সে হয়েছিল একবার।কলকাতার স্টেজে বর্ষামঙ্গল করছি।হঠাৎ বিরতির সময় একজন বললেন,কবির কাছে আমার নিবেদন আছে।

আচ্ছা বাবামশাই,ব্রাহ্মসভায় কি যেন হয়েছিল গান শেখাতে গিয়ে।

তিনি বললেন,প্রতিমা বলল।কবির কণ্ঠে গান শুনবো।বললেন,পশ্চিমে গিয়ে তো কণ্ঠ হারিয়েছি।তবু গাইব।

প্রতিমা বলে চললে,গায়কের রূপ দেখে মেয়েরা আত্মহারা।

রবীন্দ্রনাথ বললেন,অমলা বলেচে নিশ্চয়।

প্রতিমা বলল,বাবামশাই আপনি কিন্তু এখনও রূপবান।

আমি কয়েকবার গাইলুম।তাঁরা তুলেছিলেনও বেশ।এসব কথা অমলা আমায় পরে বলেছিল।

কিছুক্ষণ চোখ বুজে রইলেন।তারপর মনে মনে হাসলেন।

নতুন বউঠান বলতেন,আমার নাকটা নাকি বেজায় বেঁকা।

প্রতিমা বললে,হাসছেন যে!

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

বিদেহ নন্দিনী~১৪ || ডঃমালিনী || মূল অসমিয়া থেকে বাংলা অনুবাদঃ বাসুদেব দাস || Basudeb Das

  বিদেহ নন্দিনী~১৪ || ডঃমালিনী || মূল অসমিয়া থেকে বাংলা অনুবাদঃ বাসুদেব দাস || Basudeb Das (চৌদ্দ) বনবাসের দিনগুলি আনন্দেই পার হয়ে যাচ্ছি...