শুক্রবার, ৯ অক্টোবর, ২০২০

ব্যক্তিত্ব || সন্তু জানা || দৈনিক বাংলা ডেস্ক

ব্যক্তিত্ব

সন্তু জানা

দৈনিক বাংলা ডেস্ক 



জন্ম : ২২ / ০১ / ১৯৮৬

রাঙামাটি , মেদিনীপুর শহর


বংশ পরম্পরায় দাঁতনের ভূমিপুত্র ।  বাবা  শ্রী প্রবীর কুমার জানা , মা শ্রীমতী তপতী জানা । 

 স্থানিক ইতিহাস ও লোক সংস্কৃতি চর্চায় সদা নিমগ্ন ক্ষেত্র সমীক্ষক ও প্রাবন্ধিক ।

তিনি একাধারে ইংরেজি ভাষা ও সাহিত্য বিষয়ে শিক্ষকতার পেশায় নিযুক্ত , আবার অন্যদিকে  আঞ্চলিক ইতিহাসের একজন নিষ্ঠাবান  গবেষক ও অতীতের ইতিহাস - উপাদান সংগ্রাহক। 

বলা বাহুল্য , শ্রী জানা প্রাচীন 

প্রত্ন বিষয়ে নিরন্তর একজন অনুসন্ধানী মনের অধিকারী  ।


 দক্ষিণ - পশ্চিম সীমান্ত বাংলা তথা দাঁতনের ব্রিটিশ যুগের অপ্রকাশিত ইতিহাসের প্রথম রূপরেখা  তৈরি করেন ।

আঞ্চলিক ইতিহাস , লোকসংস্কৃতি ও লোকসাহিত্য কেন্দ্রিক জনপ্রিয় 'দ ণ্ড ভু ক্তি' 

পত্রিকার প্রধান সম্পাদক ।

দাঁতনে ' দ ণ্ড ভু ক্তি  একাডেমী ' -র প্রতিষ্ঠাতা ।প্রতি মাসে নবীন - প্রবীণ  গবেষক - কবি - সাহিত্যিক সমন্বয়ে আয়োজন করেন ' মাসিক  দ ণ্ড ভু ক্তি  বৈঠক '।


সম্পাদনা করেছেন ' দন্তপুর , দণ্ডভুক্তি ও দাঁতন : দক্ষিণ পশ্চিম সীমানা বাংলার ইতিহাস ' - নামক ৪২০ পৃষ্ঠার  প্রবন্ধ সংকলন ।

' সেকালের দাঁতন : অনালকিত ৩০০ বছরের কথা ও কাহিনী ' , ' দাঁতনপঞ্জি ' , 

'বেলদা নামের ইতিবৃত্ত ' প্রভৃতি মৌলিক গবেষণামূলক  গ্রন্থের রচয়িতা । 


দাঁতন হাইস্কুলের শতাব্দী প্রাচীন জন্ম রহস্য উদঘাটন করে লেখা ' দাঁতনের ইতিহাসের আলোকে ঐতিহ্যের স্কুলবাড়ি : এক ঐতিহাসিক অনুসন্ধান '

 শ্রী জানার একটি অন্যতম উল্লেখযোগ্য গবেষণা ।


ব্রিটিশ যুগে  ১৯৩৩ - ৩৪ সালে   মেদিনীপুর জেলার প্রতাপশালী ডিস্ট্রিক্ট ম্যাজিস্ট্রেট   মিস্টার এম . ও কার্টার সাহেবের নামাঙ্কিত , ব্রিটিশ অনুদানের তথ্য সম্বলিত  বহু কাল পূর্বে হারিয়ে যাওয়া প্রস্তর ফলক উদ্ধার করেছেন।


সম্প্রতি বাংলা - ওড়িশা সীমানা প্রান্তে মেদিনীপুর জেলার বিলুপ্তপ্রায়

 ' সিয়ালগীরি ' সম্প্রদায়ের বর্তমান সদস্য দের খুঁজে বার করেছেন । রচনা করেছেন  'সিয়ালগীরি ' সম্প্রদায়ের ভাষা ও জীবন - যাপনের  ইতিহাস , ইতিবৃত্ত ।


১৯১০ সালে  প্রখ্যাত ইতিহাসবিদ যোগেশ চন্দ্র বসু লিখিত অপ্রকাশিত পাণ্ডুলিপি ' বসু বংশ ' উদ্ধার করেছেন মেদিনীপুর শহর থেকে ।  সুচারু সম্পাদনায় এই প্রথম গ্রন্থাকারে তা প্রকাশও করেছেন ।


অখণ্ড মেদিনীপুর জেলার ইতিহাসখ্যাত স্থানগুলির গুরুত্ব ও পর্যটন সম্ভাবনার  কাহিনী একত্রীকরণ করে সম্পাদনা করেছেন ' মেদিনী দর্পণ ' । সদা অনুসন্ধানী মনের অধিকারী শ্রী জানা মেদিনীপুর শহরের আনাচে কানাচে , অলিতে গলিতে , অন্দরমহলে উঁকি মেরে উদ্ধার করেছেন  আঞ্চলিক ইতিহাসের অসংখ্য গুরুত্বপূর্ণ তথ্য । সেই সকল  অজানা তথ্য  লিপিবদ্ধ হয়েছে ' আমার মেদিনীপুর : অনুসন্ধানীর ডায়েরি ' নামক এক অসাধারণ গবেষণা গ্রন্থে ।


বর্তমানে শ্রী সন্তু জানা 

'দাঁতন - রাজ এস্টেট ' তথা মনোহরপুরের ঐতিহ্যশালী রাজবাড়ীর অপ্রকাশিত ইতিহাস অনুসন্ধান বিষয়ে অনুধ্যানী গবেষণায় মগ্ন ।


 এযাবৎকাল অবধি কলকাতা ও জেলার বিভিন্ন পত্র - পত্রিকায় অসংখ্য গবেষণামূলক প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে । এছাড়াও নিভৃতে কবিতা লেখেন শ্রী সন্তু জানা । প্রকাশিত হয়েছে চারটি কবিতার বই - ' ছায়াযুদ্ধের কবিতা ' , ' বাতাস আটকেছে কাঁটাতারে ' ,' তিরিশ লক্ষ নটিক্যাল মাইল ' ও ' প্রিয় পঞ্চবিংশতি ' । তরুণ প্রজন্মকে অজানার আঁধার থেকে মুক্ত করে প্রকৃত  জ্ঞানের  দিব্য আলোকের সম্মুখে নিয়ে আসার  অসীম অনন্ত লক্ষে  কবি , প্রাবন্ধিক ও গবেষক শ্রী সন্তু জানা একজন দক্ষ কুইজমাস্টার  রূপে একে একে রচনা ও সংকলন করেছেন - ' কুইজ টাইম ', ' ছোটদের কুইজ টাইম ', ' সেরা ৬০ ভারতীয় ' ,' কুইজ মাস্টার ' প্রভৃতি জনপ্রিয় কুইজ বিষয়ক অসংখ্য গ্রন্থাবলী । আঞ্চলিক ইতিহাস ও লোকসংস্কৃতি প্রচারের উদ্দ্যেশ্যে বহুবার দূরদর্শনের পর্দায় নির্বাচিত হয়েছেন । ২০১৩  সালে জি - বাংলার অনুষ্ঠিত  বাংলার আইকন সৌরভ গাঙ্গুলি সঞ্চালিত ' দাদাগিরি ' অনুষ্ঠানে বিশ্ববাসীর সামনে প্রাচীন মোগলমারির বৌদ্ধ মহাবিহারের কথা তুলে ধরেন । ২০১৬ সালে জি - বাংলায় প্রখ্যাত নাট্যকার দেব শঙ্কর হালদার সঞ্চালিত ' হ্যাপি পেরেন্টস ডে ' অনুষ্ঠানের সূচনা পর্বের জন্য নির্বাচিত হয়ে মেদিনীপুরবাসী হিসেবে রেকর্ড করেন । ২০১৮ সালে কালারস বাংলা চ্যানেলে মহানায়ক প্রসেনজিৎ সঞ্চালিত ' কে হবে বাংলার কোটিপতি ' অনুষ্ঠানে আড়াই হাজার বছরের প্রাচীন দাঁতন তথা দক্ষিণ - পশ্চিম মেদিনীপুরের  অনালোকিত ইতিহাস প্রসঙ্গে মনোগ্রাহী বক্তৃতা দেন । চ্যানেলটি সন্তু বাবুকে  নিয়ে একটি  অসাধারণ তথ্যচিত্র তৈরি করে তা ওই মঞ্চেই প্রকাশ করে ।  ইতিমধ্যে ২০১২ সালে আনন্দ বাজার পত্রিকার বিনোদন চ্যানেল ' সানন্দা টিভি '-তে সম্প্রচারিত বিখ্যাত সঞ্চালক মির পরিচালিত  কুইজ-রিয়েলিটি শো ' জবাব কিনতে চাই ' অনুষ্ঠানে চ্যাম্পিয়ন হয়ে ৫ লক্ষ টাকা প্রাইজ মানি জিতে অখণ্ড মেদিনীপুর  জেলার প্রথম ব্যক্তি হিসেবে এই বিশেষ কৃতিত্বের অধিকারী হন , যা এখনও জেলাবাসী আবালবৃদ্ধবনিতার কাছে গর্বের উদ্রেক করে। 


ঐতিহ্যশালী মেদিনীপুর কলেজ ও বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের গর্বিত প্রাক্তনী শ্রী জানাকে কলকাতা থেকে আলো ট্রাস্টের পক্ষ থেকে ' শিক্ষকরত্ন ' সম্মানে ভূষিত করা হয়েছে । বেলদা কালচারাল এসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে প্রদান করা হয়েছে মহার্ঘ্য ' একুশে সম্মান ' প্রভৃতি ।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

আশ্চর্য সহবাস || শ্রাবণী গুপ্ত || কবিতা

আশ্চর্য সহবাস শ্রাবণী গুপ্ত একটা গোটা জীবন আমরা গাছের বেড়ে ওঠা দেখলাম জাফরীর মতো আলো-ছায়া এসে পড়ল আমাদের গায়ে, হৃদয়ে তবু ঘৃণা করতে গিয়ে আম...