বুধবার, ৭ অক্টোবর, ২০২০

সৌমিত্র রায় - এর জন্য গদ্য ১৫৬ || প্রভাত চৌধুরী || ধারাবাহিক গদ্য

সৌমিত্র রায় - এর জন্য গদ্য

প্রভাত চৌধুরী



১৫৬.

কবিতাপাক্ষিক ২৬৬ এবং ২৬৮ সংখ্যাদুটির মধ্যে মলাটলেখায় একটা মিল আছে। দুটিতেই দুজন অন্য দেশের কবির কবিতার অনুবাদ । তার পাশাপাশি রাখা হয়েছিল দুজন বাংলাভাষার কবির কবিতা।

২৬৬ সংখ্যায় ছিল আদ্রিয়েন রীশ - এর কয়েকটি কবিতা। অনুবাদ : যশোধরা রায়চৌধুরী। একটা  ছোটো পরিচিতি ছিল। ছিল আদ্রিয়েন-এর বক্তৃতার অংশের অনুবাদ।

জন্ম ১৯২৯-এ , মেরীল্যান্ডের বাল্টিমোরে। বাবা জার্মানি থেকে বিতাড়িত ডাক্তার ।  

আদ্রিয়েন রীশ বিশিষ্ট নারীবাদী রাজনৈতিক কবি।    

এখন তাঁর কবিতার কয়েকটি লাইন পড়ে নেওয়া যাক :

দুটো গাছের রেখার মধ্যিখানে একটা জায়গা আছে

যেখানে ঘাস গজিয়েছে টিলার ডগা অব্দি।

পুরোনো বিপ্লবীদের স্মৃতি বিজড়িত রাস্তাটা ছায়ার

             মধ্যে গিয়ে দুমড়ে গেছে

পিছনে লেগে যে লাকগুলোকে খেদিয়ে দেওয়া হয়েছে 

               তাদের মিটিং হলের কাছে।

ওরা যেন হাপিস হয়ে গেছে ঠিক ওই ছায়াটার মধ্যেই।'

এখন আর একটি কবিতায় পড়লাম :

' একটা বেড়াল জল খাচ্ছে ফুল রাখার পাত্র থেকে

                                 এটা ওর মুহূর্ত।

" জীবনের প্রতি ভালোবাসা " নামক জিনিসটা নিশ্চয়ই অশেষ '

আর বাল্টিমোর থেকে হাটকেষ্টনগর।

হাটকেষ্টনগর মানে আমার জন্মস্থান। 

এই দুটি জনপদ-কে পাশাপাশি রাখার মধ্যে কোনো ষড়যন্ত্র-র সন্ধান করতে যাবেন না। এটাকে একটা আকস্মিকতা রূপে দেখা যেতে পারে।

মলাটলেখার আকর্ষণ বাড়াবার জন্য এসব করতে হয় , এটাই রীতি। সেই রীতি মতো আদ্রিয়েন এবং আমি একই শিরোনামে।

আমি ওই সংখ্যায় লিখেছিলাম :

' দলমাদল একটি কামানের নাম, এটিকে দল এবং মাদল দুটি শব্দে বিভক্ত করে দুটি কবিতা লেখার চেষ্টা করা যাক। ' এহেন  প্রচেষ্টার কথা ঘোষণা করে যা লিখেছিলাম , তার দুটি নিদর্শন :

১॥  কমলদল কিংবা বিল্বদল-এর/  উদাহরণ অভিধানে দেখে নেবেন , রাজনৈতিক দলের থেকে/ দলাদলি অধিক লোকপ্রিয় , শোণপাংশুর দলের ঠিক/ পরিপূরক দলটি কি লক্ষ্মীছাড়া 

উদাহরণ অভিধানে দেখে নেবেন , রাজনৈতিক দলের থেকে/ দলাদলি অধিক লোকপ্রিয় , শোণপাংশুর দলের ঠিক/ পরিপূরক দলটি কি লক্ষ্মীছাড়ার দল ?

২॥  এখন নৃত্যরত একটি ক্রিমসন ভায়োলেট কালিভর্তি/ কলম , কলমের নিব যেতে চাইছে জঙ্গল- ভ্রমণে, ওখানে/ মাদল নামক বাদ্যযন্ত্রটি যেভাবে শোভা পায় , মল্লরাজের রণসাজে/ ততটা পায় না '

এই হল দলমাদল কথা।

কবিতাপাক্ষিক ২৬৮ -তে ছিল ' মারিয়া থেকে আফজল '।এখানেও কাকতালীয়। অর্থাৎ Maria Cristina Azcona এবং আফজল আলি উঠে বসেছিল শিরোনামে। এর ভিতর পক্ষপাতিত্বের চিহ্ন খোঁজার চেষ্টা করুন। দেখে পেলে জানাবেন ।

মারিয়া-র অনেকগুলি কবিতার অনুবাদ করেছিল শান্তনু বন্দ্যোপাধ্যায় । Maria Cristina Azcona ল্যাটিন আমেরিকান কবি। স্পানিশ এবং ইংরেজি দু- ভাষাতেই কবিতা লেখেন। আর্জেন্টিনার বুয়েনস এয়ারস শহরে জন্ম ১৯৫২-র ৫ এপ্রিল। মারিয়ার দাদু , বাবা, ছেলে , মেয়ে প্রত্যেকেই কবিতা লেখেন।সাহিত্যের আবহাওয়ায় বেড়ে ওঠা। মরিয়া একজন মনোবিদ। প্রথম বই ১৯৯৯ -এ। 

মারিয়া- র কয়েকটি  কবিতার লাইন :

১॥ একজন অদৃশ্য মানুষ নোংরা মনোপলির ভেতর থেকে নগ্নভাবে হাসে

২॥ আমরাও এখন শব্দকরা যন্ত্র মাত্র / দাঁতে আর জুতোয় শব্দ তুলি

৩॥ অ্যাসফল্টের জঙ্গলে/ সেনটরেরা হাঁটছেন , আক্রমণাত্মক/ মাংস খুঁজছেন তাঁরা ,

৪॥ ভীষণ দুঃখের মধ্যে হঠাৎ/ ভালোবাসার ব্যথা যাত্র শুরু করে

৫॥ লম্বা কোঁকড়ানো সোনালি চুল , সে ঢেকে রাখে টুপির তলায়/ সোনালি রং করে ঢেকে রাখে ধূসর কোঁকড়া চুল।

আর দশঘরা-র তরুণ কবি আফজল আলি লিখেছিল  ' পূর্ণিমা হয়ে যাক '।

' ভুলের সমীক্ষায় পূর্ণিমা হয়ে যায় / আমাদের যাবতীয় কারাদণ্ডগুলি '

ওই সংখ্যাতে প্রকাশিত অন্য কয়েকজন কবির কবিতার কয়েকটি লাইন পড়ে নেওয়া যাক ।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Student Registration (Online)

Trainee REGISTRATION (ONLINE)

                                                                                    👇           👉             Click here for registration...