শুক্রবার, ৯ অক্টোবর, ২০২০

পূরবী~৪২ || অভিজিৎ চৌধুরী || অন্যধারার উপন্যাস

পূরবী~৪২

অভিজিৎ চৌধুরী




ভুবনডাঙার মাঠ জ্যোৎস্নায় ভেসে যাচ্ছিল।প্রতিমার ঘুম ভেঙে গেল গান গাওয়ার শব্দে।

বাবামশই গাইছেন,তখন আমায় নাই- বা মনে রখলে।

জমবে ধুলো তানপুরাটার তারগুলায়।

প্রতিমা বাইরের বারান্দায় এসে দেখলে বাবামশাই অশক্ত শরীরে ভুবনডাঙার খোলা মাঠে দু হাত আকাশের দিকে তুলে গাইছেন- আমি বাইব না মোর খেয়াতরী এই বাটে।

বারবার গাইছেন।

কি সুন্দর গাইছিলেন!

গান শেষ হলে প্রতিমা বললে,বর্ষার জল শুরু হলে ঠাণ্ডা লাগবে।

মনে পড়ল তিনি বলতেন,তুমি বড্ডো হ্যাংলা রবি।বললেই গাইতে হবে।

মনে হলো গাই।কতোদিন তো গাইনি।

রবীন্দ্রনাথ হেসে বললেন,ঘুম ভাঙিয়ে দিলুম তোমার!

ভুবনডাঙার মাঠ নিয়ে এখন কতো কিছু হচ্ছে।

সচরাচর লিখতে লিখতে তীর্থ ফিরে তাকায় না।ফলে কাটাকুটি নেই।

কে একজন বলেছিল,তীর্থ, তোমার তো বেশ।দেখি নাই ফিরে।

তীর্থের শরীর ঠিক নেই।মনও আজ বেমানান।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

আটপৌরে কবিতা ৩৭০-৩৭২ || অলোক বিশ্বাস || "i-যুগ"-এর কবিতা

  আটপৌরে  কবিতা ৩৭০-৩৭২ || অলোক বিশ্বাস || "i-যুগ"-এর কবিতা আটপৌরে কবিতা : অলোক বিশ্বাস ------------------------- ৩৭০. শাসক বললো আ...