শুক্রবার, ১৬ অক্টোবর, ২০২০

সৌমিত্র রায় - এর জন্য গদ্য ১৬৫ || প্রভাত চৌধুরী || ধারাবাহিক গদ্য

সৌমিত্র রায় - এর জন্য গদ্য

প্রভাত চৌধুরী



১৬৫.

অতঃপর গৌরাঙ্গ মিত্র ।গৌরাঙ্গ-র সঙ্গে পরিচয়ের বেশ কয়েকটি পর্ব আছে। আমাদের কবিতাপাক্ষিক-এ ঠিক এরকমটাই লিখেছিল গৌরাঙ্গ। 

 গত দশ বছরের যে নতুন কবিতাপাক্ষিক , তার অন্যতম কোর-কমিটির মেম্বার গৌরাঙ্গ মিত্র। 'আমাদের গৌরাঙ্গ মিত্র ' বইটিতে যা লেখার লিখেছি।তবে এই কথাটা লিখেছিলাম কিনা মনে নেই।

গৌরাঙ্গ মিত্র-র যাবতীয় কিন্তু কবিতাপাক্ষিক কেন্দ্রীক। ওর স্বপ্নে যেমন কবিতাপাক্ষিক , ঠিক তেমনই জাগরণেও কবিতাপাক্ষিক।

গৌরাঙ্গ বেশ দীর্ঘদিন শারীরিকভাবে অসুস্থ। কিন্তু সেই অসুস্থতাকে আমল দিতে নারাজ গৌরাঙ্গ।

কবিতাপাক্ষিক-এর অর্থনৈতিক অবস্থা কারোই অজানা নেই। অনেকের আর্থিক সহায়তায় কবিতা-পাক্ষিক টিকে আছে। দাঁড়িয়ে আছে। হাঁটাচলাও করছে। প্রয়োজনে দৌড়াদৌড়িও করছে। এই প্রসঙ্গে একটা কথা জানিয়ে রাখতে চাই :

পে-কমিশনের সুপারিশে বেতনকাঠামোর বিন্যাস হয়। ফলে একসঙ্গে কিছু টাকা এরিয়ারও পাওয়া যায়। গৌরাঙ্গ দু-বার সেই এরিয়ারের প্রাপ্য টাকার একটা অংশ কবিতাপাক্ষিক-কে দিয়েছিল। এই নজির বাংলাকবিতায় দুর্লভ। 

গৌরাঙ্গ মিত্র -র লেখার কয়েক লাইন :

' পশ্চিমবঙ্গে এবং পশ্চিমবঙ্গের বাইরে যে বিপুল সংখ্যক কবি কবিতাপাক্ষিককে কেন্দ্র করে আহ্নিকগতি সম্পন্ন করে যাচ্ছেন তাঁদের অনেকে আমার আত্মজন হয়ে উঠেছেন। আজ যদি পশ্চিম- বঙ্গের আঠেরোটি জেলায় ১৮ × ২ = ৩৬ জন কবিতা- প্রেমী মানুষের কাছে আমার নামটি পৌঁছে গিয়ে থাকে, তা কবিতাপাক্ষিকের জন্যই হতে পেরেছে। '

এই কথাটি গৌরাঙ্গ ঠিক লেখেনি। ৩৬ কেন , এটা নিরূপণ করার একটি পদ্ধতি হল --- বই বিক্রি। তার হিসেব কপা দপ্তরে আছে । কবিতা এবং ভ্রমণ-সংক্রান্ত বেশ অনেকগুলি বই-ই কিন্তু একাধিকবার ছাপতে হয়েছে। আমাদের প্রতিষ্ঠান বই বিলিতে বিশ্বাস করে না। এটা নতুন করে লিখলাম না।

গৌরাঙ্গ মিত্র নামটি কবিতাপাঠকদের কাছে পরিচিত হয়েছে ,

 নামটি কবিতাপাঠকদের কাছে পরিচিত হয়েছে , ওর লেখার গুণে। এতে আমার কিংবা কবিতাপাক্ষিকের কোনো কৃতিত্ব নেই।

' নিজগুণে ' এই শব্দটির  নতুন একটি বিশেষ অর্থ হল গৌরাঙ্গ মিত্র । এটুকুই আমি জানি এবং বুঝি।।

পরের জন সত্যসাধন চেল। বাঁকুড়ার বেলবনী নামক গ্রামটি বাংলাকবিতার ইতিহাসে উজ্জ্বল হয়ে আছে: একই পরিবারের তিনজন কবির জন্য। রাজকল্যাণ , সত্যসাধন এবং সুব্রত-র জন্য। অনেকেই মজা করে 'চেলবংশ' বলে থাকে।যে যার মতো বলুক। বলার অধিকার আছে বলেই বলে। এখন আমি দেখব সত্যসাধন কী বলেছিল :

' আমি কবিতাপাক্ষিক পরিবারের একজন হিসাবে গৌরব বোধ করি। কবিতাপাক্ষিক প্রকাশের প্রথম থেকে আমি রয়েছি। এমনকী যখন থেকে কবিতা-পাক্ষিক শুরু, তার পরিকল্পনা ও প্রচার- প্রসারে ওতপ্রোতভাবে রয়ে গেছি। প্রথম সংখ্যাটির জন্য বাঁকুড়ার কাদাকুলি গ্রামে প্রভাতদার বাড়িতেই কবিতাপাক্ষিক প্রকাশ ও লেখা নির্বাচনের প্রথম বৈঠকে আমার উপস্থিতি আমাকে অহংকারী করে রেখেছে আজও।

সত্যই সত্যসাধন ,  তোমরা তিন ভাই আমার অহংকার। আমি অহংকারী তোমাদের সঙ্গ পেয়ে।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

আশ্চর্য সহবাস || শ্রাবণী গুপ্ত || কবিতা

আশ্চর্য সহবাস শ্রাবণী গুপ্ত একটা গোটা জীবন আমরা গাছের বেড়ে ওঠা দেখলাম জাফরীর মতো আলো-ছায়া এসে পড়ল আমাদের গায়ে, হৃদয়ে তবু ঘৃণা করতে গিয়ে আম...