রবিবার, ৩১ জানুয়ারী, ২০২১

কিছু বই কিছু কথা ২৭১ । নীলাঞ্জন কুমার || দুঃখ আমার গর্ভজাত । জগদীশ পাল । কবিতিকা

কিছু বই কিছু কথা ২৭১ । নীলাঞ্জন কুমার




দুঃখ আমার গর্ভজাত । জগদীশ পাল ।  কবিতিকা
। একশো টাকা


কবি জগদীশ পালের কাব্যগ্রন্থ ' দুঃখ আমার গর্ভজাত ' র ব্লার্বে লেখা হয়েছে:  '  যা ছিল যা নেই এ দুয়ের হিসেব মেলাতে গিয়ে কবি এক আদ্যন্ত কবিতার বলয় নির্মাণ করেছেন । ' এ কথার সঙ্গে গোটা বইটি পড়ে একমত না হলেও তবু বলা যায় তাঁর কবিতার ভেতর নিজের চেতনা মিশিয়ে দিতে তিনি সচেষ্ট আছেন । যার প্রমাণ:
' কাশির ঝলকে ঝলকে আমি যখন অন্ধকারে মিশে যাব/  দেখবে কানায় কানায় ভরে উঠেছে- /তোমার বকশিশের গামছা ' ( ' বকশিশের গামছা '), ' অন্ধকারের ঐশ্বর্য ভাঙতে ভাঙতে/  তোমার কাছে এসেছি ' ( স্বদেশ)  এর মতো উচ্চারণ ।
        সে অর্থে জগদীশের কবিতা ভালোবাসতে পারা যায় কিন্তু তবু মনে হয় কিছু কিছু ক্ষেত্রে অতিসরলীকরণ,  অতি কথা,  অতি আবেগীয় দিক পরিহার করতে পারলে তিনি বিশেষ জায়গায় পৌছোতে পারবেন ।
         বুঝতে হবে কবিতা লিখতে গেলে তার প্রাথমিক শর্তই ' বিন্দুতে সিন্ধুর স্বাদ ' আনা । যা তাঁর কবিতায়  ' মেছনীর বেশে তখনও/  তোকে বুঝতে পারিনি/  আজ হৃদয়ে কালকেউটের বিষ/  তুই একবার বেহুলা হবি না! ' ( সুজাতা ') মতো অগুনতি পংক্তির ভেতরে মেলে না । অগাধ স্বপ্ন,  প্রতিবাদ,  বোধের কিছু কিছু উৎকৃষ্টতা লক্ষ্য করলেও কবিতা পিপাসুদের  তেমনভাবে  মুগ্ধ করতে পারবে না ।
         আসলে এতো কথা বলার কারণ,  কবির কবিতার সম্ভাবনা আছে বলেই । কবিকে স্থিত হতে হবেই,  নাহলে সম্ভাবনা সম্ভাবনাই থেকে যাবে । আমি তাঁর বিকাশ চাই,  মুগ্ধ হতে চাই কবিতায় । সৌরভকুমার ধবলদেবের কৃত প্রচ্ছদে মন ভরে না । যদিও  জল রঙের কাজ সন্তোষজনক ।


কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

চ্যাটমোড লিখনশৈলীতে লেখা কবিতা-৮৪ || সৌমিত্র রায় || "i-যুগ"-এর কবিতা

  চ্যাটমোড লিখনশৈলীতে লেখা কবিতা-৮৪ সৌমিত্র রায়  "i-যুগ"-এর কবিতা মেদিনীপুর; ২৬-০২-২০২১; সন্ধ্যা৬:৪০; কথা বলছে ৷ মাইক ৷ রাজনীতির ক...