Sunday, May 10, 2020

কিছু বই কিছু কথা, নীলাঞ্জন কুমার, সম্পর্কের পাতাবাহার, দেবাশিস সাহা, কুর্চি,

কিছু বই কিছু কথা ।নীলাঞ্জন কুমার 

সম্পর্কের পাতাবাহার। দেবাশিস সাহা । কুর্চি । ত্রিশ টাকা ।

' বাবার শাসনের ফাঁক দিয়ে/ আমি উঁকি দিতাম ভিডিও হলে/ বলিউড রং করতো আমার কৈশোর । ' কিংবা,  'পাড়া জুড়ে অমাবস্যা/  মামা বসতো নাটমন্দিরে/  ঠিক হতো আলোর পাট্টা কে পাবে '-র মতো অনন্যসাধারণ লাইনের স্রষ্টা দেবাশিস সাহা ধীরে ধীরেজীবনানন্দের পরবর্তী চিত্ররূপময়তার দিক থেকে এক অসাধারণ ইমেজ রাখছেন ।
           দেবাশিস লেখেন: ' বড়োমামা ছিল ফেরিওয়ালা/  নদী ফেরি করে/ বানাতো পেল্লায়সাইজেরঅ্যাপার্টমেন্ট।(বড়োমামা)  , 'দাদু জানতো/ নক্ষত্র থেকে ফুল হবার কৌশল/ তারাখসা দেখলে/স্বপ্নে আসে ঠাকুমা'(ঠাকুমা) । কি অপূর্ব সম্পর্ক স্থাপন করেছেন দেবাশিস ।  যা মনে হয় খেলার ছলে । কিন্তু তা নয়, এর জন্য লাগে সাধনা ।
             দেবাশিসের কবিতার চমৎকার হাতের জন্য চিত্ররূপময়তার অন্য বিন্যাস।পাই । এ বিষয়ে অবশ্য  সঙ্গে নাম করা যায় কবি রমেন আচার্য ও  কবি    অচিন্ত্য নন্দীরও। ভালো লাগে যখন বইটির শেষে এসে তিনি ' ভাদু-দা ' কবিতায় বলেন ' সেই বিশ্বস্ত কাঁধ/ আর চওড়া বুকে অনেক প্রশ্রয়/  খুচরো পয়সাকে রং করে চাঁদ বানাতো/ আর আমি পিঠের উপর বসে/ জোর চিৎকার/ চল বাসন্তী '।স্পর্শকাতর প্রচ্ছদের জন্য নাসের হোসেনকে ধন্যবাদ ।

No comments:

Post a Comment

আটপৌরে কবিতা ৪৪৬- ৪৫০ || নীলাঞ্জন কুমার || ধারাবাহিক বিভাগ

আটপৌরে কবিতা নীলাঞ্জন কুমার ৪৪৬ কুসুমাস্তীর্ণ /কণ্টকাকীর্ণ/  স্বাভাবিক          ) পথ ( চলতে চলতে লক্ষ্যে এগোন । ৪৪৭ মোব...