শনিবার, ১৭ অক্টোবর, ২০২০

কিছু বই কিছু কথা । নীলাঞ্জন কুমার অগ্নিকীট । তপন ভট্টাচার্য । আদম

 কিছু বই কিছু কথা । নীলাঞ্জন কুমার 



অগ্নিকীট । তপন ভট্টাচার্য । আদম । বারো টাকা ।


আজ থেকে একত্রিশ বছর আগে প্রকাশিত তপন ভট্টাচার্যের কাব্যগ্রন্থ 'অগ্নিকীট '  এই আজকের কবিতার বাইরে কিছু অন্য স্বাদ দিয়ে যায়,  যখন পাই: 

' কামে দেহ লাল,  রাত্রি তার কোলে/  ধাত্রী ঘুমমগ্ন,  আয় জন্ম মেঘ ফুঁড়ে '  তখন শিরোনামহীন ছাব্বিশটি কবিতার টিউনিং ধরা পড়ে । বোঝা যায় জন্মস্বাদ, যৌনতা  , প্রাণ ইত্যাদির মাঝামাঝি দাঁড়িয়ে কবি তাঁর নিজস্ব সুরে কথা বলেন,  যার বেশির ভাগই নিজের সুরে কথা বলা হয়ে যায়,  তাতে পাই বিশেষ আকুতি । সে কারণে এই সব  পংক্তি টানে:  '  ' অন্ঞ্জলি ঢালো স্তনে, আর গর্ভফুল ফেটে/  রুদ্র এলো,  শিশু রুদ্র-  জটাজালে ঔদার্য দ্যুতি ' , ' বুভুক্ষু বাতাস গরম,  অম্লগ্যাস - গান নেই-  ওঁ কার ..../ কে হাসে বিশুদ্ধ ঝড় বেগে- ত্রাহিমাং, ত্রাহিমাং! ' 

            কবি তাঁর কবিতায় যে চিন্তন সৃষ্টি  করেছেন  তার ভেতরে প্রাচীন বা তৎসম শব্দের আরোপ প্রকট । যা গোটা বইতে বিশেষ আবহ আনে। কবি ইচ্ছে করেই সাজিয়ে রাখেন এক বিশেষ রহস্য,  যাতে ' অগ্নিকীট ' কে বিশেষভাবে মানুষের সামনে দাঁড় করানো যায় । এই ব্যতিক্রমী বইটির ভেতর থেকে তাই যৌনতার স্বাদ আলাদাভাবে পাই,  যেখানে বাৎসায়ন ও কোকাপুরী  বেশ দূরে রয়ে যায় । 

                 কবিকে গুরুত্বপূর্ণ মনে হয় তাঁর শব্দসম্ভারের ভেতরে এক সুনিপুণ ভাবনার কারণে । যা, ' সূর্যের কেন্দ্রীভূত আগুন-  স্পর্শ-  আশ্লেষে/  অনুকণা তীব্র হলাহলে জীবপ্রাপ্ত- একবার ' এর মতো উচ্চারণ উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত । গৌতম ঘোষ দস্তিদারের প্রচ্ছদের নামাঙ্কনের হরফগুণ স্পর্শ করে।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

দশটি হাইকু || ফটিক চৌধুরী || কবিতা

  দশটি হাইকু ফটিক চৌধুরী ১. রবিঠাকুর কাছে টানে নীরবে বাড়ায় হাত। ২.প্রাণের টানে কবিতায় এসেছি কবিতা জানে! ৩.রাত বাড়ুক আসবে সুপ্রভাত তোমার ...