মঙ্গলবার, ১০ নভেম্বর, ২০২০

কিছু বই কিছু কথা- ১৮৮ । নীলাঞ্জন কুমার || রানু এক জ্বর । তীর্থংকর মৈত্র

কিছু বই কিছু কথা- ১৮৮ । নীলাঞ্জন কুমার




রানু এক জ্বর । তীর্থংকর মৈত্র । প্রচ্ছায়া । পাঁচ টাকা ।


১৯৯৭ সালে প্রকাশিত এক ফর্মার ক্ষীণতনু কাব্যপুস্তিকার ভেতর দিয়ে যে কবিকে  আমরা চিনে ফেলি তা হল 'রানু এক জ্বর ' । বোধহয় একে আবিষ্কার করা বলে,  সম্ভবতঃ এই প্রথম কাব্য পুস্তিকাতে তিনি এলেন দেখলেন জয় করলেন । বইটির প্রথম কবিতা তার প্রমাণ : ' আবার এসে গেল ক্ষমাহীন উড়ুউড়ু দিন/  পরদা জানালা ছুঁয়ে উড়ে যায় দীর্ঘ- দীর্ঘ-  / রোগা প্রেমিকের মুখের   মতো ক্লান্ত ভায়োলিন ! ' ( ' ক্লান্ত ভায়োলিন ') ফলে 'রানু এক জ্বর ' সেই কাব্য পুস্তিকা হয়ে উঠেছিল যার ভেতর দিয়ে আমরা সন্ধান করতে পারি কাব্য কোথায় যেতে পারে । পাশাপাশি:  ' ব্লেডের মতো টুকরো টুকরো ছড়ানো ছিটানো এত সব ক্লান্তি/  একদিন ঠিক গিলে ফেলবো/  একদিন এক চুমুক শুষে নিয়ে/  ডেটলের গন্ধের মতো ভেসে থাকা সব কিছু বিষণ্ণতা/  আমি নির্ঘাত মরে যাব কাচের জানালা । '
( ' আমি মরে যাব কাচের জানালা ') , ' ঘাস খোঁজা ভেড়ার মতো তার স্বপ্নরা ভেসে ওঠে উঠেছিল আরো কোন দূরে ..../ আমি স্পর্শ করিনি- ' ( ' ভয়েলের মতো শান্ত এক একাকীত্ব ') -র কাছে দাঁড়িয়ে বলতে ইচ্ছে হয় ' ওয়াও ' !
                 কবির এই বইটির বড় দিক হল বৈচিত্র্য । প্রতিটি কবিতার সঙ্গে অসামান্য টিউনিং বজায় যেমন আছে,  তেমনি তারা স্বাতন্ত্র নিয়ে থাকে ।কবি অনবরত নিজেকে ভাঙচুরের ভেতরে গড়ে তুলেছেন এসব অমোঘ কবিতা, যা ঈর্ষণীয় । তাই ' ঘোড়া প্রসবের রাত্রি ছড়ানো খড়ের মধ্যে বাতাসার চাঁদ ' ( ' আর কিছুই মনে পড়ছে না  '),  ' কি?আর দেবো?  হতচ্ছাড়ী চাপকে দেব ছোট্ট করে! ' ( ' শাসন ')   পংক্তি তন্নিষ্ঠ করে তোলে । তাই ' রানু এক জ্বর ' সংগ্রহযোগ্য ' কাব্য পুস্তিকা হয়ে ওঠে ।
        তীর্থংকরের কাব্যগ্রন্থ কম। তাঁর লেখার প্রয়োজন আছে,  নাহলে সুন্দর দেখবো কি করে!  সুবিভারন্ঞ্জন বিশ্বাসের প্রচ্ছদ অপাংক্তেয়,  ছবিটি অত্যন্ত ছোট,  তাই ছাপ রাখতে পারেনা ।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

শব্দব্রাউজ ৩০ || নীলাঞ্জন কুমার || "আই-যুগ"-এর কবিতা

  শব্দব্রাউজ  ৩০  ||  নীলাঞ্জন কুমার বিপাশা আবাসন তেঘরিয়া ২৯।১১।২০২০ সকাল ৮-৩২ মিনিট । পান্নালাল ভট্টাচার্যের কথা খুব মনে পড়ছে । তাঁর শ্যামা...