শুক্রবার, ১৫ জানুয়ারী, ২০২১

কিছু বই কিছু কথা ২৫৫ । নীলাঞ্জন কুমার || শ্রাবণকথা । সৌমিত বসু । আলাপ প্রকাশনী

 

কিছু বই কিছু কথা  ২৫৫ । নীলাঞ্জন কুমার




শ্রাবণকথা । সৌমিত বসু । আলাপ প্রকাশনী
। দশ টাকা ।

১৯৯৮সালের সৌমিত বসু- র কবিতার ভেতর যদি ঢোকা  যায় ,  তবে তার জন্য হাজির থাকবে ' শ্রাবণকথা ' নামের ১৬ পৃষ্ঠার কাব্য পুস্তিকাটি । যার ভেতরে কবি  অভ্যস্ত কবজির মোচড়ে ছড়িয়ে দেন স্বাদু কবিতা যেখানে শ্রাবণের সৌন্দর্য,  তার গতিধারা ও প্রবহমানতা  ধরা পড়ে। যেমন তাঁর শিরোনামহীন পংক্তি:  ' আকাশে আকাশে ঘষা আলোর আলোর বিদ্যুৎ,  মেঘে মেঘে ঝাপটানো ডানা,  ডানার আনন্দ রঙ ঘিরে বেড়ে ওঠা সম্পন্ন বয়েস,  চোখে মুখে সূর্যের রঙ ছাপিয়ে এলো চোখে কলঘরে । প্রণাম শ্রাবণ ।' , '  অমল অশ্রুঝরা কুয়াশার জল,  তুমি কেন , কেন কেউ কখনো মাখেনি ' ,
' অঝোর বৃষ্টির মাঝে আহত আশ্বিন সমস্ত আঁকা আছে একটি বিকেলে। ' -র মতো অনিবার্য উচ্চারণ ।
        কবি সৌমিত যখন যেমন ভাবেই কাব্যগ্রন্থ আনুন না কেন,  তিনি চমৎকার আবহ সৃষ্টি করেন তার ভেতরে যা আলোচ্য কাব্যগ্রন্থে সৃষ্টি করেছেন  । এই বইটির চোদ্দটি গদ্যধর্মী কবিতার মাধ্যমে তা আমাদের ভেতরে সংবহিত হয় । সৌমিত সেই কারণে  কবি ,  কারণ তাঁর আছে পরিমিতি জ্ঞান । এর ফলে কবিতা আরো গভীর হয়ে ওঠে ,  ক্লান্তি আনে না ।
              বইটির ভেতরে অভিনবত্ব এই যে কবি  শ্রাবণকে অনেক বেশি মানবিক করে তুলেছেন । অনেক কিছু জাগ্রত করে তোলেন বোধে । সম্ভবত সৌমিত বসুর ( বইটির মধ্যে প্রচ্ছদকারের নাম নেই)  প্রচ্ছদ পরিকল্পনা সুন্দর । বড় পরিপাটি কাব্যগ্রন্থটি সংগ্রহযোগ্য হয়েওঠে ।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

আজ অভিভাবকহীন হলাম || বাসুদেব দাস

আজ অভিভাবকহীন হলাম বাসুদেব দাস   অন্যান্য দিনের মতো আজও সকালবেলা ঘুম থেকে উঠে কম্পিউটারে সৌরভ কুমাৰ চলিহার একটি গল্প বাংলায় অনুবাদ করছিলাম...